আ.লীগের কেন্দ্রীয় নেতারা আইভীর অভিযোগ নিয়ে যা বললেন

আ.লীগের কেন্দ্রীয় নেতারা আইভীর অভিযোগ নিয়ে যা বললেন

নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের এমপি শামীম ওসমান নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচনে তৈমুর আলম খন্দকারের পক্ষে কাজ করছেন বলে অভিযোগ করেছেন আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী ডা. সেলিনা হায়াত আইভী।

শনিবার বন্দরের ২৪নং ওয়ার্ডে নির্বাচনি প্রচারের সময় তিনি বলেছেন, গতকাল বন্দরে তৈমুর প্রচারণা চালিয়েছেন, সেলিম ওসমানের জাতীয় পার্টির চারজন চেয়ারম্যান তার সঙ্গে ছিলেন। এতে প্রমাণিত হয় নারায়ণগঞ্জে যে গুঞ্জন ছিল তৈমুর আলম খন্দকার গডফাদার শামীম ওসমানের ক্যান্ডিডেট, গতকাল তা প্রমাণিত হয়েছে।

এদিন দুপুরে নারায়ণগঞ্জ প্রেস ক্লাবের নিচে সিনামন রেস্টুরেন্টে মেয়র প্রার্থী সেলিনা হায়াত আইভীর পক্ষে এক মতবিনিময় সভা হয়। সেখানে কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের নির্বাচন সমন্বয় কমিটির সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

এ সময় বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য আব্দুর রহমান বলেন, কোনো ব্যক্তিই এ নির্বাচনে কোনো অবস্থাতেই অপরিহার্য নয়। যার কথা বলা হচ্ছে তিনি একটা দলের আদর্শ নীতি-শৃঙ্খলা নেতৃত্বের প্রতি আনুগত্য প্রকাশ- ইত্যাদি লালন করেই এত ‘বড় নেতা’ হয়েছেন। উনি যদি আজ সেগুলো প্রতিপালন না করেন এবং দলীয় প্রার্থীর বিরুদ্ধে অবস্থান নেন, আমাদের কাছে যেসব খবর আসছে সেগুলোর তথ্য-উপাত্ত সংগ্রহ করছি। উনি আমাদের প্রার্থীর বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছেন নিশ্চিত হলে তার বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেওয়া ছাড়া আমাদের কাছে বিকল্প থাকবে না। তার বিরুদ্ধে অবশ্যই সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এদিকে মতবিনিময় সভায় গণমাধ্যম কর্মীদের অনেক প্রশ্নের উত্তরই এড়িয়ে গেছেন কেন্দ্রীয় নেতারা। দলীয় প্রার্থী আইভী নৌকা প্রতীকের হয়েও কেন সিদ্ধিরগঞ্জের বিএনপি নেতা কাউন্সিলর প্রার্থী ইকবাল, বিএনপির সাবেক এমপি গিয়াস উদ্দিনের ছেলে কাউন্সিলর প্রার্থী সাদরিল ও শহরে গণসংহতি আন্দোলনের প্রার্থী পপী রানীকে নিয়ে নৌকার প্রচারণা করেছেন- এমন প্রশ্নের কোনো জবাব দেননি কেন্দ্রীয় নেতারা।

এছাড়া আইভী বলেছেন, স্বতন্ত্র প্রার্থী তৈমুর আওয়ামী লীগের এমপি শামীম ওসমানের প্রার্থী- এ কথার সঙ্গে তারা একমত কিনা, এমন প্রশ্নেরও সরাসরি কোনো উত্তর দেননি নেতারা।

মতবিনিময়কালে আব্দুর রহমান বলেন, একটা অংশগ্রহণমূলক, সুষ্ঠু ও অবাধ নির্বাচন নারায়ণগঞ্জে হতে পেরেছে কিনা এটাই প্রধানমন্ত্রীর মূল দৃষ্টিভঙ্গি। সুতরাং নারায়ণগঞ্জে একটা অবাধ, সুষ্ঠু, অংশগ্রহণমূলক এবং সবাই যেন ভোট দিতে পারে সেই ব্যবস্থা অবশ্যই নির্বাচন কমিশন করবে।

মতবিনিময়কালে দলের প্রেসিডিয়াম সদস্য জাহাঙ্গীর কবির নানক বলেন, প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে নির্বাচন পরিচালনা কমিটিতে আমরা যারা আছি, নৌকাকে জেতাতে কাজ করে যাচ্ছি। ভৌগোলিক কারণে নারায়ণগঞ্জ আমাদের কাছে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। আইভী এতদিন সুন্দর, সুষ্ঠুভাবে দায়িত্ব পালন করেছেন। সেই কারণে তাকে মনোনয়ন দেওয়া হয়েছে। আমরা সবার সহযোগিতা চাই। ভোটাররা ভোট কেন্দ্রে গিয়ে ভোট দেবেন এবং নৌকাকে দেবেন বলে আমরা বিশ্বাস করি।

তিনি আরও বলেন, আমাদের কাছে এখানে কোনো ব্যক্তি বিষয় নয়। এ নির্বাচনে আমি কী অবদান রাখব, দায়িত্ব পালন করব কিনা- তা আমার ওপরই নির্ভর করে। যদি আমি ব্যর্থ হই সেজন্য দলের কাছে জবাবদিহি করতে হবে, সে যেই হোন না কেন। নৌকার জন্য যদি কাজ না করেন, তাহলে নিজের সঙ্গে বিশ্বাসঘাতকতা করা হবে। জাতীয় পার্টি আমাদের মহাজোটের সংগঠন। এখানে যিনি আছেন তাকে মনে রাখতে হবে, আমাদের সমর্থন নিয়েই আপনি নির্বাচন করেছিলেন। আশা করি তিনি আমাদের সমর্থন করবেন।

নানক আরও বলেন, এ নির্বাচনে প্রধান হচ্ছে গণসমর্থন। নৌকার পক্ষে জাগরণ সৃষ্টি হয়েছে। এ জাগরণে নৌকা লক্ষাধিক ভোটে জয়লাভ করবে।

এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন- দলের যুগ্ম সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাসিম, সাংগঠনিক সম্পাদক আহমদ হোসেন, এসএম কামাল, নারায়ণগঞ্জ মহানগর সভাপতি আনোয়ার হোসেন, সাধারণ সম্পাদক খোকন সাহা, জেলা সভাপতি আব্দুল হাই প্রমুখ।

আ.লীগের কেন্দ্রীয় নেতারা আইভীর অভিযোগ নিয়ে যা বললেন

নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের এমপি শামীম ওসমান নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচনে তৈমুর আলম খন্দকারের পক্ষে কাজ করছেন বলে অভিযোগ করেছেন আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী ডা. সেলিনা হায়াত আইভী।

শনিবার বন্দরের ২৪নং ওয়ার্ডে নির্বাচনি প্রচারের সময় তিনি বলেছেন, গতকাল বন্দরে তৈমুর প্রচারণা চালিয়েছেন, সেলিম ওসমানের জাতীয় পার্টির চারজন চেয়ারম্যান তার সঙ্গে ছিলেন। এতে প্রমাণিত হয় নারায়ণগঞ্জে যে গুঞ্জন ছিল তৈমুর আলম খন্দকার গডফাদার শামীম ওসমানের ক্যান্ডিডেট, গতকাল তা প্রমাণিত হয়েছে।

এদিন দুপুরে নারায়ণগঞ্জ প্রেস ক্লাবের নিচে সিনামন রেস্টুরেন্টে মেয়র প্রার্থী সেলিনা হায়াত আইভীর পক্ষে এক মতবিনিময় সভা হয়। সেখানে কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের নির্বাচন সমন্বয় কমিটির সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

এ সময় বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য আব্দুর রহমান বলেন, কোনো ব্যক্তিই এ নির্বাচনে কোনো অবস্থাতেই অপরিহার্য নয়। যার কথা বলা হচ্ছে তিনি একটা দলের আদর্শ নীতি-শৃঙ্খলা নেতৃত্বের প্রতি আনুগত্য প্রকাশ- ইত্যাদি লালন করেই এত ‘বড় নেতা’ হয়েছেন। উনি যদি আজ সেগুলো প্রতিপালন না করেন এবং দলীয় প্রার্থীর বিরুদ্ধে অবস্থান নেন, আমাদের কাছে যেসব খবর আসছে সেগুলোর তথ্য-উপাত্ত সংগ্রহ করছি। উনি আমাদের প্রার্থীর বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছেন নিশ্চিত হলে তার বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেওয়া ছাড়া আমাদের কাছে বিকল্প থাকবে না। তার বিরুদ্ধে অবশ্যই সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এদিকে মতবিনিময় সভায় গণমাধ্যম কর্মীদের অনেক প্রশ্নের উত্তরই এড়িয়ে গেছেন কেন্দ্রীয় নেতারা। দলীয় প্রার্থী আইভী নৌকা প্রতীকের হয়েও কেন সিদ্ধিরগঞ্জের বিএনপি নেতা কাউন্সিলর প্রার্থী ইকবাল, বিএনপির সাবেক এমপি গিয়াস উদ্দিনের ছেলে কাউন্সিলর প্রার্থী সাদরিল ও শহরে গণসংহতি আন্দোলনের প্রার্থী পপী রানীকে নিয়ে নৌকার প্রচারণা করেছেন- এমন প্রশ্নের কোনো জবাব দেননি কেন্দ্রীয় নেতারা।

এছাড়া আইভী বলেছেন, স্বতন্ত্র প্রার্থী তৈমুর আওয়ামী লীগের এমপি শামীম ওসমানের প্রার্থী- এ কথার সঙ্গে তারা একমত কিনা, এমন প্রশ্নেরও সরাসরি কোনো উত্তর দেননি নেতারা।

মতবিনিময়কালে আব্দুর রহমান বলেন, একটা অংশগ্রহণমূলক, সুষ্ঠু ও অবাধ নির্বাচন নারায়ণগঞ্জে হতে পেরেছে কিনা এটাই প্রধানমন্ত্রীর মূল দৃষ্টিভঙ্গি। সুতরাং নারায়ণগঞ্জে একটা অবাধ, সুষ্ঠু, অংশগ্রহণমূলক এবং সবাই যেন ভোট দিতে পারে সেই ব্যবস্থা অবশ্যই নির্বাচন কমিশন করবে।

মতবিনিময়কালে দলের প্রেসিডিয়াম সদস্য জাহাঙ্গীর কবির নানক বলেন, প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে নির্বাচন পরিচালনা কমিটিতে আমরা যারা আছি, নৌকাকে জেতাতে কাজ করে যাচ্ছি। ভৌগোলিক কারণে নারায়ণগঞ্জ আমাদের কাছে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। আইভী এতদিন সুন্দর, সুষ্ঠুভাবে দায়িত্ব পালন করেছেন। সেই কারণে তাকে মনোনয়ন দেওয়া হয়েছে। আমরা সবার সহযোগিতা চাই। ভোটাররা ভোট কেন্দ্রে গিয়ে ভোট দেবেন এবং নৌকাকে দেবেন বলে আমরা বিশ্বাস করি।

তিনি আরও বলেন, আমাদের কাছে এখানে কোনো ব্যক্তি বিষয় নয়। এ নির্বাচনে আমি কী অবদান রাখব, দায়িত্ব পালন করব কিনা- তা আমার ওপরই নির্ভর করে। যদি আমি ব্যর্থ হই সেজন্য দলের কাছে জবাবদিহি করতে হবে, সে যেই হোন না কেন। নৌকার জন্য যদি কাজ না করেন, তাহলে নিজের সঙ্গে বিশ্বাসঘাতকতা করা হবে। জাতীয় পার্টি আমাদের মহাজোটের সংগঠন। এখানে যিনি আছেন তাকে মনে রাখতে হবে, আমাদের সমর্থন নিয়েই আপনি নির্বাচন করেছিলেন। আশা করি তিনি আমাদের সমর্থন করবেন।

নানক আরও বলেন, এ নির্বাচনে প্রধান হচ্ছে গণসমর্থন। নৌকার পক্ষে জাগরণ সৃষ্টি হয়েছে। এ জাগরণে নৌকা লক্ষাধিক ভোটে জয়লাভ করবে।

এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন- দলের যুগ্ম সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাসিম, সাংগঠনিক সম্পাদক আহমদ হোসেন, এসএম কামাল, নারায়ণগঞ্জ মহানগর সভাপতি আনোয়ার হোসেন, সাধারণ সম্পাদক খোকন সাহা, জেলা সভাপতি আব্দুল হাই প্রমুখ।

আ.লীগের কেন্দ্রীয় নেতারা আইভীর অভিযোগ নিয়ে যা বললেন

নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের এমপি শামীম ওসমান নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচনে তৈমুর আলম খন্দকারের পক্ষে কাজ করছেন বলে অভিযোগ করেছেন আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী ডা. সেলিনা হায়াত আইভী।

শনিবার বন্দরের ২৪নং ওয়ার্ডে নির্বাচনি প্রচারের সময় তিনি বলেছেন, গতকাল বন্দরে তৈমুর প্রচারণা চালিয়েছেন, সেলিম ওসমানের জাতীয় পার্টির চারজন চেয়ারম্যান তার সঙ্গে ছিলেন। এতে প্রমাণিত হয় নারায়ণগঞ্জে যে গুঞ্জন ছিল তৈমুর আলম খন্দকার গডফাদার শামীম ওসমানের ক্যান্ডিডেট, গতকাল তা প্রমাণিত হয়েছে।

এদিন দুপুরে নারায়ণগঞ্জ প্রেস ক্লাবের নিচে সিনামন রেস্টুরেন্টে মেয়র প্রার্থী সেলিনা হায়াত আইভীর পক্ষে এক মতবিনিময় সভা হয়। সেখানে কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের নির্বাচন সমন্বয় কমিটির সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

এ সময় বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য আব্দুর রহমান বলেন, কোনো ব্যক্তিই এ নির্বাচনে কোনো অবস্থাতেই অপরিহার্য নয়। যার কথা বলা হচ্ছে তিনি একটা দলের আদর্শ নীতি-শৃঙ্খলা নেতৃত্বের প্রতি আনুগত্য প্রকাশ- ইত্যাদি লালন করেই এত ‘বড় নেতা’ হয়েছেন। উনি যদি আজ সেগুলো প্রতিপালন না করেন এবং দলীয় প্রার্থীর বিরুদ্ধে অবস্থান নেন, আমাদের কাছে যেসব খবর আসছে সেগুলোর তথ্য-উপাত্ত সংগ্রহ করছি। উনি আমাদের প্রার্থীর বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছেন নিশ্চিত হলে তার বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেওয়া ছাড়া আমাদের কাছে বিকল্প থাকবে না। তার বিরুদ্ধে অবশ্যই সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এদিকে মতবিনিময় সভায় গণমাধ্যম কর্মীদের অনেক প্রশ্নের উত্তরই এড়িয়ে গেছেন কেন্দ্রীয় নেতারা। দলীয় প্রার্থী আইভী নৌকা প্রতীকের হয়েও কেন সিদ্ধিরগঞ্জের বিএনপি নেতা কাউন্সিলর প্রার্থী ইকবাল, বিএনপির সাবেক এমপি গিয়াস উদ্দিনের ছেলে কাউন্সিলর প্রার্থী সাদরিল ও শহরে গণসংহতি আন্দোলনের প্রার্থী পপী রানীকে নিয়ে নৌকার প্রচারণা করেছেন- এমন প্রশ্নের কোনো জবাব দেননি কেন্দ্রীয় নেতারা।

এছাড়া আইভী বলেছেন, স্বতন্ত্র প্রার্থী তৈমুর আওয়ামী লীগের এমপি শামীম ওসমানের প্রার্থী- এ কথার সঙ্গে তারা একমত কিনা, এমন প্রশ্নেরও সরাসরি কোনো উত্তর দেননি নেতারা।

মতবিনিময়কালে আব্দুর রহমান বলেন, একটা অংশগ্রহণমূলক, সুষ্ঠু ও অবাধ নির্বাচন নারায়ণগঞ্জে হতে পেরেছে কিনা এটাই প্রধানমন্ত্রীর মূল দৃষ্টিভঙ্গি। সুতরাং নারায়ণগঞ্জে একটা অবাধ, সুষ্ঠু, অংশগ্রহণমূলক এবং সবাই যেন ভোট দিতে পারে সেই ব্যবস্থা অবশ্যই নির্বাচন কমিশন করবে।

মতবিনিময়কালে দলের প্রেসিডিয়াম সদস্য জাহাঙ্গীর কবির নানক বলেন, প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে নির্বাচন পরিচালনা কমিটিতে আমরা যারা আছি, নৌকাকে জেতাতে কাজ করে যাচ্ছি। ভৌগোলিক কারণে নারায়ণগঞ্জ আমাদের কাছে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। আইভী এতদিন সুন্দর, সুষ্ঠুভাবে দায়িত্ব পালন করেছেন। সেই কারণে তাকে মনোনয়ন দেওয়া হয়েছে। আমরা সবার সহযোগিতা চাই। ভোটাররা ভোট কেন্দ্রে গিয়ে ভোট দেবেন এবং নৌকাকে দেবেন বলে আমরা বিশ্বাস করি।

তিনি আরও বলেন, আমাদের কাছে এখানে কোনো ব্যক্তি বিষয় নয়। এ নির্বাচনে আমি কী অবদান রাখব, দায়িত্ব পালন করব কিনা- তা আমার ওপরই নির্ভর করে। যদি আমি ব্যর্থ হই সেজন্য দলের কাছে জবাবদিহি করতে হবে, সে যেই হোন না কেন। নৌকার জন্য যদি কাজ না করেন, তাহলে নিজের সঙ্গে বিশ্বাসঘাতকতা করা হবে। জাতীয় পার্টি আমাদের মহাজোটের সংগঠন। এখানে যিনি আছেন তাকে মনে রাখতে হবে, আমাদের সমর্থন নিয়েই আপনি নির্বাচন করেছিলেন। আশা করি তিনি আমাদের সমর্থন করবেন।

নানক আরও বলেন, এ নির্বাচনে প্রধান হচ্ছে গণসমর্থন। নৌকার পক্ষে জাগরণ সৃষ্টি হয়েছে। এ জাগরণে নৌকা লক্ষাধিক ভোটে জয়লাভ করবে।

এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন- দলের যুগ্ম সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাসিম, সাংগঠনিক সম্পাদক আহমদ হোসেন, এসএম কামাল, নারায়ণগঞ্জ মহানগর সভাপতি আনোয়ার হোসেন, সাধারণ সম্পাদক খোকন সাহা, জেলা সভাপতি আব্দুল হাই প্রমুখ।

Leave a Reply

Your email address will not be published.