কক্ষে ভোটগ্রহণ! ২৯ এজেন্ট বাইরে বসা,

কক্ষে ভোটগ্রহণ! ২৯ এজেন্ট বাইরে বসা,

পৌর নির্বাচনে একটি কেন্দ্রে প্রার্থীদের ২৯ জন পোলিং এজেন্ট বাইরে চেয়ারে বসে রয়েছেন, আর কক্ষে ভোটগ্রহণ চলছে। রোববার অনুষ্ঠিত নাটোরের বাগাতিপাড়া পৌর নির্বাচনে টুনিপাড়া কমিউনিটি ক্লিনিকের অস্থায়ী ভোট কেন্দ্রে এমন চিত্র দেখা গেছে।

তবে জায়গার সংকুলান না হওয়ায় এমনটা হয়েছে বলে দাবি করেছেন দায়িত্বপ্রাপ্ত প্রিসাইডিং কর্মকর্তাসহ নির্বাচন কর্মকর্তারা।

জানা গেছে, মামলা জটিলতা কাটিয়ে দীর্ঘ ১৬ বছরের প্রতীক্ষা শেষে অনুষ্ঠিত হচ্ছে এ পৌরসভার নির্বাচন। সকাল ৮টা থেকে বিরতিহীনভাবে চলে বিকাল ৪টা পর্যন্ত। টুনিপাড়ার ওই কেন্দ্রে মোট ভোটার সংখ্যা ৯৩৭ জন। প্রার্থী রয়েছেন ১১ জন। তিনটি বুথের দুটি পুরুষ ও একটি মহিলা বুথ রয়েছে। বিপরীতে পোলিং এজেন্ট রয়েছেন ৩৩ জন।

এর একটি মহিলা বুথে শুধু মেয়র প্রার্থীদের ৪ জন এজেন্টকে রুমের ভেতর বসতে দেওয়া হয়েছে। আর বাকি ২৯ জন এজেন্টকে কমিউনিটি ক্লিনিকের সামনে খোলা আকাশের নিচে চেয়ারে বসতে দেওয়া হয়েছে।

ভোটের দিন বেলা সাড়ে ১১টায় ওই কেন্দ্রে সরেজমিন দেখা যায়, কমিউনিটি ক্লিনিকের সামনে খোলা আকাশের নিচে ২৯ জন পোলিং এজেন্ট বসে রয়েছেন। আর মহিলা বুথে শুধু মেয়র প্রার্থীদের ৪ জন এজেন্টকে রুমের ভেতর বসতে দেওয়া হয়েছে।

সাধারণ সদস্য পুরুষ প্রার্থীর পোলিং এজেন্ট টুনিপাড়া গ্রামের মাজেদুর রহমান বলেন, কক্ষের ভিতরে জায়গা না হওয়ায় তাদের সকাল থেকেই বাইরে খোলা আকাশের নিচে বসতে দেওয়া হয়েছে।

সংরক্ষিত মহিলা সদস্য পদের এজেন্ট টুনিপাড়া গ্রামের তরিকুল ইসলাম বলেন, ভোট শুরু হওয়ার প্রথম থেকেই তারা কক্ষের বাইরে বসে আছেন।

ওই কেন্দ্রে দায়িত্বপ্রাপ্ত প্রিসাইডিং কর্মকর্তা আলমগীর হোসেন বলেন, কেন্দ্রটি একটি কমিউনিটি ক্লিনিক। ভেতরে জায়গা খুবই কম। এজেন্টদের ভেতরে বসতে দেওয়ার মতো কোনো জায়গা নাই। তারা গেটের সামনে বসে পর্যবেক্ষণ করছেন।

সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা আব্দুল মজিদ বলেন, কেন্দ্রে স্থান সংকুলান না হওয়ায় এবং বিকল্প ব্যবস্থা না থাকায় বাধ্য হয়ে তাদের বাইরে চেয়ারে বসার ব্যবস্থা করা হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.