কিছু পুরুষ লিপস্টিক মেখে অন্য খেলা খেলার চেষ্টা করছে (ভিডিও)

কিছু পুরুষ লিপস্টিক মেখে অন্য খেলা খেলার চেষ্টা করছে (ভিডিও)

খেলা খেলার চেষ্টা করছে। তারা বলছে নৌকা না পেলে এটা হতো সেটা হতো। সেই লিপস্টিকওয়ালাদের বলতে চাই, নারায়ণগঞ্জ নৌকার ঘাটি, শেখ হাসিনার ঘাটি। এখানে অন্য খেলার চেষ্টা করবেন না।

তিনি বলেন, বাবা বলেছিলেন- বঙ্গবন্ধু হত্যার প্রতিশোধ নিতে গিয়ে আমার ছেলেদের মৃত্যু হলে আমি মরেও শান্তি পাবো। আমি সেই বাবার ছেলে। বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যার পর খুনি মোশতাক আমার মাকে (প্রয়াত ভাষা সৈনিক নাগিনা জোহা) বলেছিলেন বাবা যেন তার মন্ত্রিসভায় যোগ দেন। আমার মা বলেছিলেন- আমার স্বামী আপনার মন্ত্রিসভায় যোগ দিলে প্রথমে চেষ্টা করবো তাকে হত্যা করতে, না পারলে নিজেকেই হত্যা করবো।
তিনি আরও বলেন, আমি সেই মায়ের সন্তান। আমার প্রয়াত ভাই মুক্তিযোদ্ধা নাসিম ওসমান ১৪ আগস্ট বিয়ে করে ১৫ আগস্ট নববধূকে রেখে বঙ্গবন্ধুর হত্যার প্রতিশোধ নিতে চলে গিয়েছিলেন।

আমি সেই পরিবারের সন্তান বলেই বিশ্বাস করি নৌকা স্বাধীনতার প্রতীক, নৌকা শেখ হাসিনার প্রতীক, নৌকা আমাদের অস্তিত্বের প্রতীক। আমাদের শ্লোগান ‘জয় বাংলা জয় বঙ্গবন্ধু’ যে শ্লোগান শুনলে অনেকের বুকে কাপুঁনি ধরে।
এমপি শামীম ওসমান বলেন, আচরণবিধির কারণে এতদিন সরাসরি নামিনি ঠিকই কিন্তু আমাদের মূল ধারার সব নেতাকর্মীই নৌকার জন্য নেমেছেন। এখানে কে প্রার্থী ,হু কেয়ারস। কলাগাছ না আমগাছ সেটা দেখার বিষয় না। এটা আমার স্বাধীনতার নৌকা, এটা বঙ্গবন্ধুর নৌকা, এটা আমাদের ৪৯ জন লাশের নৌকা, চন্দন শীলের ২ পায়ের বিনিময়ের নৌকা।

হোসেন সাজনু, নারায়ণগঞ্জ জেলা দায়রা জজ আদালতের সাবেক পাবলিক প্রসিকিউটর ওয়াজেদ আলী খোকন, জেলা আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি হাসান ফেরদাউস জুয়েল, জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি মোহসিন মিয়া, ফতুল্লা থানা

কিছু পুরুষ লিপস্টিক মেখে অন্য খেলা খেলার চেষ্টা করছে (ভিডিও)

খেলা খেলার চেষ্টা করছে। তারা বলছে নৌকা না পেলে এটা হতো সেটা হতো। সেই লিপস্টিকওয়ালাদের বলতে চাই, নারায়ণগঞ্জ নৌকার ঘাটি, শেখ হাসিনার ঘাটি। এখানে অন্য খেলার চেষ্টা করবেন না।

তিনি বলেন, বাবা বলেছিলেন- বঙ্গবন্ধু হত্যার প্রতিশোধ নিতে গিয়ে আমার ছেলেদের মৃত্যু হলে আমি মরেও শান্তি পাবো। আমি সেই বাবার ছেলে। বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যার পর খুনি মোশতাক আমার মাকে (প্রয়াত ভাষা সৈনিক নাগিনা জোহা) বলেছিলেন বাবা যেন তার মন্ত্রিসভায় যোগ দেন। আমার মা বলেছিলেন- আমার স্বামী আপনার মন্ত্রিসভায় যোগ দিলে প্রথমে চেষ্টা করবো তাকে হত্যা করতে, না পারলে নিজেকেই হত্যা করবো।
তিনি আরও বলেন, আমি সেই মায়ের সন্তান। আমার প্রয়াত ভাই মুক্তিযোদ্ধা নাসিম ওসমান ১৪ আগস্ট বিয়ে করে ১৫ আগস্ট নববধূকে রেখে বঙ্গবন্ধুর হত্যার প্রতিশোধ নিতে চলে গিয়েছিলেন।

আমি সেই পরিবারের সন্তান বলেই বিশ্বাস করি নৌকা স্বাধীনতার প্রতীক, নৌকা শেখ হাসিনার প্রতীক, নৌকা আমাদের অস্তিত্বের প্রতীক। আমাদের শ্লোগান ‘জয় বাংলা জয় বঙ্গবন্ধু’ যে শ্লোগান শুনলে অনেকের বুকে কাপুঁনি ধরে।
এমপি শামীম ওসমান বলেন, আচরণবিধির কারণে এতদিন সরাসরি নামিনি ঠিকই কিন্তু আমাদের মূল ধারার সব নেতাকর্মীই নৌকার জন্য নেমেছেন। এখানে কে প্রার্থী ,হু কেয়ারস। কলাগাছ না আমগাছ সেটা দেখার বিষয় না। এটা আমার স্বাধীনতার নৌকা, এটা বঙ্গবন্ধুর নৌকা, এটা আমাদের ৪৯ জন লাশের নৌকা, চন্দন শীলের ২ পায়ের বিনিময়ের নৌকা।

হোসেন সাজনু, নারায়ণগঞ্জ জেলা দায়রা জজ আদালতের সাবেক পাবলিক প্রসিকিউটর ওয়াজেদ আলী খোকন, জেলা আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি হাসান ফেরদাউস জুয়েল, জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি মোহসিন মিয়া, ফতুল্লা থানা

কিছু পুরুষ লিপস্টিক মেখে অন্য খেলা খেলার চেষ্টা করছে (ভিডিও)

খেলা খেলার চেষ্টা করছে। তারা বলছে নৌকা না পেলে এটা হতো সেটা হতো। সেই লিপস্টিকওয়ালাদের বলতে চাই, নারায়ণগঞ্জ নৌকার ঘাটি, শেখ হাসিনার ঘাটি। এখানে অন্য খেলার চেষ্টা করবেন না।

তিনি বলেন, বাবা বলেছিলেন- বঙ্গবন্ধু হত্যার প্রতিশোধ নিতে গিয়ে আমার ছেলেদের মৃত্যু হলে আমি মরেও শান্তি পাবো। আমি সেই বাবার ছেলে। বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যার পর খুনি মোশতাক আমার মাকে (প্রয়াত ভাষা সৈনিক নাগিনা জোহা) বলেছিলেন বাবা যেন তার মন্ত্রিসভায় যোগ দেন। আমার মা বলেছিলেন- আমার স্বামী আপনার মন্ত্রিসভায় যোগ দিলে প্রথমে চেষ্টা করবো তাকে হত্যা করতে, না পারলে নিজেকেই হত্যা করবো।
তিনি আরও বলেন, আমি সেই মায়ের সন্তান। আমার প্রয়াত ভাই মুক্তিযোদ্ধা নাসিম ওসমান ১৪ আগস্ট বিয়ে করে ১৫ আগস্ট নববধূকে রেখে বঙ্গবন্ধুর হত্যার প্রতিশোধ নিতে চলে গিয়েছিলেন।

আমি সেই পরিবারের সন্তান বলেই বিশ্বাস করি নৌকা স্বাধীনতার প্রতীক, নৌকা শেখ হাসিনার প্রতীক, নৌকা আমাদের অস্তিত্বের প্রতীক। আমাদের শ্লোগান ‘জয় বাংলা জয় বঙ্গবন্ধু’ যে শ্লোগান শুনলে অনেকের বুকে কাপুঁনি ধরে।
এমপি শামীম ওসমান বলেন, আচরণবিধির কারণে এতদিন সরাসরি নামিনি ঠিকই কিন্তু আমাদের মূল ধারার সব নেতাকর্মীই নৌকার জন্য নেমেছেন। এখানে কে প্রার্থী ,হু কেয়ারস। কলাগাছ না আমগাছ সেটা দেখার বিষয় না। এটা আমার স্বাধীনতার নৌকা, এটা বঙ্গবন্ধুর নৌকা, এটা আমাদের ৪৯ জন লাশের নৌকা, চন্দন শীলের ২ পায়ের বিনিময়ের নৌকা।

হোসেন সাজনু, নারায়ণগঞ্জ জেলা দায়রা জজ আদালতের সাবেক পাবলিক প্রসিকিউটর ওয়াজেদ আলী খোকন, জেলা আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি হাসান ফেরদাউস জুয়েল, জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি মোহসিন মিয়া, ফতুল্লা থানা

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *