চেয়ারম্যান প্রার্থীর ভাই রাতে টাকা বিতরণকালে আটক,৬ মাসের কারাদণ্ড

চেয়ারম্যান প্রার্থীর ভাই রাতে টাকা বিতরণকালে আটক,৬ মাসের কারাদণ্ড

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনের আগের রাতে টাকা বিতরণের সময় এক চেয়ারম্যান প্রার্থীর ভাইকে আটক করে ছয় মাসের কারাদণ্ড দিয়েছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত।

গতকাল মঙ্গলবার রাতে সদর উপজেলার সুলতানপুর ইউনিয়নের হাবলাউচ্চ গ্রাম থেকে ওই ব্যক্তিকে ৫০ হাজার টাকাসহ আটক করা হয়। পরে জেলা প্রশাসনের সহকারী কমিশনার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট
কারাদণ্ড পাওয়া ব্যক্তির নাম শেখ মো. এখলাছুর রহমান (৩৬)। বাবার নাম শেখ মো. মতিউর রহমান। এখলাছুরের বড় ভাই শেখ মো. মহসিন। তিনি সদর উপজেলার সুলতানপুর ইউপি নির্বাচনে আনারস প্রতীকের চেয়ারম্যান প্রার্থী। তিনি নৌকার বিদ্রোহী প্রার্থী।

অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মো. রুহুল আমিন এবং সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ইয়ামিন হোসেন জানান, এখলাছুর এক চেয়ারম্যান প্রার্থীর ভাই। তাঁকে গতকাল রাত সাড়ে ১০টার দিকে ৫০ হাজার টাকাসহ হাতেনাতে আটক করা হয়। তিনি পোলিং এজেন্ট ও ভোটারদের প্রভাবিত করার জন্য টাকা বিতরণ করছিলেন। স্থানীয় সরকার ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন বিধিমালা, ২০১০-এর ৭১ (৩) ধারা অনুসারে ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে এখলাছুরকে ছয় মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে।

 

আজ বুধবার দেশের ৭০৮টি ইউপিতে পঞ্চম ধাপের ভোট গ্রহণ হচ্ছে। এই ধাপে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর উপজেলার ১০টি ইউপি ও আশুগঞ্জ উপজেলার ৮টি ইউপিতে ভোট হচ্ছে। এর মধ্যে সদর উপজেলার সুলতানপুর ইউপি রয়েছে। নির্বাচনে ভ্রাম্যমাণ আদালতসহ আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা মাঠে কাজ করে যাচ্ছেন।

গতকাল মঙ্গলবার রাতে সদর উপজেলার সুলতানপুর ইউনিয়নের হাবলাউচ্চ গ্রাম থেকে ওই ব্যক্তিকে ৫০ হাজার টাকাসহ আটক করা হয়। পরে জেলা প্রশাসনের সহকারী কমিশনার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট
কারাদণ্ড পাওয়া ব্যক্তির নাম শেখ মো. এখলাছুর রহমান (৩৬)। বাবার নাম শেখ মো. মতিউর রহমান। এখলাছুরের বড় ভাই শেখ মো. মহসিন। তিনি সদর উপজেলার সুলতানপুর ইউপি নির্বাচনে আনারস প্রতীকের চেয়ারম্যান প্রার্থী। তিনি নৌকার বিদ্রোহী প্রার্থী।

অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মো. রুহুল আমিন এবং সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ইয়ামিন হোসেন জানান, এখলাছুর এক চেয়ারম্যান প্রার্থীর ভাই। তাঁকে গতকাল রাত সাড়ে ১০টার দিকে ৫০ হাজার টাকাসহ হাতেনাতে আটক করা হয়। তিনি পোলিং এজেন্ট ও ভোটারদের প্রভাবিত করার জন্য টাকা বিতরণ করছিলেন। স্থানীয় সরকার ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন বিধিমালা, ২০১০-এর ৭১ (৩) ধারা অনুসারে ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে এখলাছুরকে ছয় মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.