পরাজিত প্রার্থী নার্গিসের,পক্ষে কাজ না করায় যুবককে মারধর

পরাজিত প্রার্থী নার্গিসের,পক্ষে কাজ না করায় যুবককে মারধর

নির্বাচনে পক্ষে কাজ না করায় জসীম উদ্দীন (৩২) নামে এক যুবককে মারধরের অভিযোগ উঠেছে চট্টগ্রামের বাঁশখালী পৌরসভা সংরক্ষিত ৭,৮,৯ নং ওয়ার্ডের পরাজিত কাউন্সিলর প্রার্থী নার্গিস আক্তার ও তার স্বামী এবং দেবরের বিরুদ্ধে।

নির্বাচন শেষে রোববার সন্ধ্যায় পৌরসভার ৭নং ওয়ার্ডের আসকরিয়া এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। জসীম উদ্দীন পেট, বুক ও কোমরে আঘাত পেয়েছেন বলে জানা গেছে।

এ ব্যাপারে জসীম উদ্দীন বলেন, আমি নির্বাচনে মেয়র পদে নৌকার প্রার্থীর পক্ষে কাজ করেছি। নির্বাচন শেষে বাড়ি ফেরার পথে নার্গিস আক্তারের পক্ষে কাজ না করায় তার স্বামীর নেতৃত্বে আমার ওপর হামলা চালানো হয়।

তারা প্লাস্টিকের চেয়ার দিয়ে আমাকে মারধর করে। আমি বর্তমানে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ৫ তলা ২৮নং বেডে চিকিৎসাধীন। এ ঘটনার সুষ্ঠু তদন্তপূর্বক বিচার দাবি করছি।

এ ব্যাপারে অভিযোগ অস্বীকার করে কাউন্সিলর প্রার্থী নার্গিস আক্তার বলেন, নির্বাচন শেষে আমি ও আমার স্বামী বাড়ি ফিরে গিয়েছি। বাড়িতে আসার পর এ ঘটনার কথা শুনেছি। তবে এ ঘটনা কারা করেছে তা আমাদের জানা নেই। আমরা কোনোভাবেই এ ঘটনার সঙ্গে জড়িত নই।

বাঁশখালী থানার ওসি মো. কামাল উদ্দিন জানান, এ ব্যাপারে মৌখিকভাবে শুনেছি। এখনও কোনো অভিযোগ পাইনি। অভিযোগ পেলে তদন্তসাপেক্ষে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

 

পরাজিত প্রার্থী নার্গিসের,পক্ষে কাজ না করায় যুবককে মারধর

নির্বাচনে পক্ষে কাজ না করায় জসীম উদ্দীন (৩২) নামে এক যুবককে মারধরের অভিযোগ উঠেছে চট্টগ্রামের বাঁশখালী পৌরসভা সংরক্ষিত ৭,৮,৯ নং ওয়ার্ডের পরাজিত কাউন্সিলর প্রার্থী নার্গিস আক্তার ও তার স্বামী এবং দেবরের বিরুদ্ধে।

নির্বাচন শেষে রোববার সন্ধ্যায় পৌরসভার ৭নং ওয়ার্ডের আসকরিয়া এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। জসীম উদ্দীন পেট, বুক ও কোমরে আঘাত পেয়েছেন বলে জানা গেছে।

এ ব্যাপারে জসীম উদ্দীন বলেন, আমি নির্বাচনে মেয়র পদে নৌকার প্রার্থীর পক্ষে কাজ করেছি। নির্বাচন শেষে বাড়ি ফেরার পথে নার্গিস আক্তারের পক্ষে কাজ না করায় তার স্বামীর নেতৃত্বে আমার ওপর হামলা চালানো হয়।

তারা প্লাস্টিকের চেয়ার দিয়ে আমাকে মারধর করে। আমি বর্তমানে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ৫ তলা ২৮নং বেডে চিকিৎসাধীন। এ ঘটনার সুষ্ঠু তদন্তপূর্বক বিচার দাবি করছি।

এ ব্যাপারে অভিযোগ অস্বীকার করে কাউন্সিলর প্রার্থী নার্গিস আক্তার বলেন, নির্বাচন শেষে আমি ও আমার স্বামী বাড়ি ফিরে গিয়েছি। বাড়িতে আসার পর এ ঘটনার কথা শুনেছি। তবে এ ঘটনা কারা করেছে তা আমাদের জানা নেই। আমরা কোনোভাবেই এ ঘটনার সঙ্গে জড়িত নই।

বাঁশখালী থানার ওসি মো. কামাল উদ্দিন জানান, এ ব্যাপারে মৌখিকভাবে শুনেছি। এখনও কোনো অভিযোগ পাইনি। অভিযোগ পেলে তদন্তসাপেক্ষে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.