সাড়ে আট কোটিতে এক সেলফি বিক্রি হলো

সাড়ে আট কোটিতে এক সেলফি বিক্রি হলো

কম্পিটারের সামনে বসে প্রতিদিন সেলফি তুলতেন এই কলেজছাত্র। ইচ্ছা ছিল পড়াশোনা শেষে সেলফিগুলো দিয়ে একটি ভিডিও তৈরির। কিন্তু কখনো ভাবেননি নেহায়েত শখের বসে তোলা এই সেলফির কপাল খুলে দেবে তার। কারণ নিজের সেলফিগুলো নন ফাঙ্গিবল টোকেনে (এনএফটি) ১০ লাখ মার্কিন ডলারের বেশি (বাংলাদেশি মুদ্রায় আড়ে আট কোটি টাকার বেশি) দামে বিক্রি করেছেন তিনি।

তার ইচ্ছা ছিল এক হাজার সেলফি জমিয়ে সেগুলো দিয়ে গ্রাজুয়েশনের দিন একটা টাইমলাপস ভিডিও তৈরির।

ক্রিপটোকারেন্সি সম্পর্কে জানার পর ২২ বছর বয়সী এই শিক্ষার্থী এএফটিতে তার ছবি আপলোড করার সিদ্ধান্ত নেন। এর পর ‘ঘোজালির প্রতিদিন’ শিরোনামে ছবিগুলো ট্রেডিং প্ল্যাটফর্মে আপলোড করেন।

নিছক মজার ছলেই সেলফিগুলো আপলোড করেছিলেন তিনি। ভেবেছিলেন কেউ এ ব্যাপারে আগ্রহ দেখাবে না। কিন্তু তাকে অবাক করে দিয়ে একজন ঘোজালির সেলফি সংগ্রহ করেন।

এভাবে একে একে তার ৩১৭টি সেলফি বিক্রি হয়ে যায়। ঘোজালির পকেটে ওঠে ১০ লাখ মার্কিন ডলারের বেশি।

নিজের একটি অ্যানিমেশন স্টুডিও খোলার স্বপ্ন দেখেন ঘোজালি। এই অর্থ সেই স্বপ্ন পূরণেই ব্যয় করবেন বলে জানিয়েছেন তিনি। এছাড়া পড়া শেষ হওয়া পর্যন্ত প্রতিদিন সেলফি তোলা চলবে বলেও জানিয়েছেন এই তরুণ।

 

সাড়ে আট কোটিতে এক সেলফি বিক্রি হলো

কম্পিটারের সামনে বসে প্রতিদিন সেলফি তুলতেন এই কলেজছাত্র। ইচ্ছা ছিল পড়াশোনা শেষে সেলফিগুলো দিয়ে একটি ভিডিও তৈরির। কিন্তু কখনো ভাবেননি নেহায়েত শখের বসে তোলা এই সেলফির কপাল খুলে দেবে তার। কারণ নিজের সেলফিগুলো নন ফাঙ্গিবল টোকেনে (এনএফটি) ১০ লাখ মার্কিন ডলারের বেশি (বাংলাদেশি মুদ্রায় আড়ে আট কোটি টাকার বেশি) দামে বিক্রি করেছেন তিনি।

তার ইচ্ছা ছিল এক হাজার সেলফি জমিয়ে সেগুলো দিয়ে গ্রাজুয়েশনের দিন একটা টাইমলাপস ভিডিও তৈরির।

ক্রিপটোকারেন্সি সম্পর্কে জানার পর ২২ বছর বয়সী এই শিক্ষার্থী এএফটিতে তার ছবি আপলোড করার সিদ্ধান্ত নেন। এর পর ‘ঘোজালির প্রতিদিন’ শিরোনামে ছবিগুলো ট্রেডিং প্ল্যাটফর্মে আপলোড করেন।

নিছক মজার ছলেই সেলফিগুলো আপলোড করেছিলেন তিনি। ভেবেছিলেন কেউ এ ব্যাপারে আগ্রহ দেখাবে না। কিন্তু তাকে অবাক করে দিয়ে একজন ঘোজালির সেলফি সংগ্রহ করেন।

এভাবে একে একে তার ৩১৭টি সেলফি বিক্রি হয়ে যায়। ঘোজালির পকেটে ওঠে ১০ লাখ মার্কিন ডলারের বেশি।

নিজের একটি অ্যানিমেশন স্টুডিও খোলার স্বপ্ন দেখেন ঘোজালি। এই অর্থ সেই স্বপ্ন পূরণেই ব্যয় করবেন বলে জানিয়েছেন তিনি। এছাড়া পড়া শেষ হওয়া পর্যন্ত প্রতিদিন সেলফি তোলা চলবে বলেও জানিয়েছেন এই তরুণ।

সাড়ে আট কোটিতে এক সেলফি বিক্রি হলো

কম্পিটারের সামনে বসে প্রতিদিন সেলফি তুলতেন এই কলেজছাত্র। ইচ্ছা ছিল পড়াশোনা শেষে সেলফিগুলো দিয়ে একটি ভিডিও তৈরির। কিন্তু কখনো ভাবেননি নেহায়েত শখের বসে তোলা এই সেলফির কপাল খুলে দেবে তার। কারণ নিজের সেলফিগুলো নন ফাঙ্গিবল টোকেনে (এনএফটি) ১০ লাখ মার্কিন ডলারের বেশি (বাংলাদেশি মুদ্রায় আড়ে আট কোটি টাকার বেশি) দামে বিক্রি করেছেন তিনি।

তার ইচ্ছা ছিল এক হাজার সেলফি জমিয়ে সেগুলো দিয়ে গ্রাজুয়েশনের দিন একটা টাইমলাপস ভিডিও তৈরির।

ক্রিপটোকারেন্সি সম্পর্কে জানার পর ২২ বছর বয়সী এই শিক্ষার্থী এএফটিতে তার ছবি আপলোড করার সিদ্ধান্ত নেন। এর পর ‘ঘোজালির প্রতিদিন’ শিরোনামে ছবিগুলো ট্রেডিং প্ল্যাটফর্মে আপলোড করেন।

নিছক মজার ছলেই সেলফিগুলো আপলোড করেছিলেন তিনি। ভেবেছিলেন কেউ এ ব্যাপারে আগ্রহ দেখাবে না। কিন্তু তাকে অবাক করে দিয়ে একজন ঘোজালির সেলফি সংগ্রহ করেন।

এভাবে একে একে তার ৩১৭টি সেলফি বিক্রি হয়ে যায়। ঘোজালির পকেটে ওঠে ১০ লাখ মার্কিন ডলারের বেশি।

নিজের একটি অ্যানিমেশন স্টুডিও খোলার স্বপ্ন দেখেন ঘোজালি। এই অর্থ সেই স্বপ্ন পূরণেই ব্যয় করবেন বলে জানিয়েছেন তিনি। এছাড়া পড়া শেষ হওয়া পর্যন্ত প্রতিদিন সেলফি তোলা চলবে বলেও জানিয়েছেন এই তরুণ।

Leave a Reply

Your email address will not be published.