কেন ব্লাড ক্যানসার হয়ে থাকে এবং blood cancer symptoms গুলা কি?

ক্যানসার,ব্লাড ক্যানসার,blood cancer,blood test for cancer,cancer of the blood,cancer blood test,blood cancer symptoms,types of blood cancer,what is blood cancer,blood cancer awareness month,

★blood cancer সমস্যায় অনেক মানুষেই ভোগছেন বাংলাদেশে।অনেকেই ভাবেন কি করে এটা থেকে মুক্তি পাব? আজ জানব  ক্যানসার হওয়ার জন্য ঝুঁকিপূর্ণ কারণগুলো কী?

★ডা. এ বি এম ইউনুস blood cancer symptoms নিয়ে এনটিভির স্বাস্থ্য প্রতিদিন আলোচনার ৩০০২তম পর্বে ব্লাড ক্যানসার নিয়ে বলেন।তিনি হেমাটোলজি বিভাগের অধ্যাপক হিসেবে কর্মরত আছেন বর্তমানে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়।

প্রশ্ন : ব্লাড ক্যানসারের ঝুঁকিপূর্ণ কারণগুলো কী?  আর এতে কী খাদ্যদ্রব্য ও পরিবেশের প্রভাব রয়েছে?

★তিনি cancer of the blood নিয়ে বলেন,ক্যানসার হলো অনিয়ন্ত্রিত কোষ।এটি যবি মানব দেহে বড় হতে থাকে তখন সমস্যা সৃষ্টি হয়।কোষটি আস্তে আস্তে মানব শরীরে ছড়িয়ে পড়ে এবং বড় ধরনের ক্ষতি জন্য তৈরি হয়।

★types of blood cancer কি?  তার মধ্যে একটা হলো মুখের ঝিল্লি। এটা আমরা যখন খাবার সেবন করি তখন কিন্তু খাবারের জন্য কিছু টা ছোট হয়ে যায়।সব চেয়ে বড় কথা হলো আপনি যখন সকালে উঠবেন তখন দেখবেন আমার বড় হয়ে গেছে।এমন হতে পারে সেই গুলা থেমে নাই দিন দিন বড় হতে চলছে।এমন ভাবে কিছু দিন চলার পর দেখবেন ওখানে কোষ বাসা বাধছে।

★কোষের সীমাহীন বৃদ্ধি থেকে মানুষের টিউমার তৈরি হয়ে থাকে।আবার অনেক সময় এই বৃদ্ধি blood cancer জন্য হয়ে থাকে।যদি এমন হয় তাহলে সেটা শরীরের জন্য খুবই মারাত্মক। তখন blood test for cancer করা অতি জরুরি হয়ে যায়।ক্যানসার এর জীবাণু গুলা এক জায়গায় থাকে না যেখান থেকে হয় ওখান থেকে বিভিন্ন জায়গায় ছড়িয়ে পড়ে এবং দেহের বিভিন্ন অঙ্গ প্রন্তাঙ্গে ছড়িয়ে পরে।শরীর কার্যক্ষমতা একটু একটু করে পুরোপুরি বন্ধ করে দেয়।

★ মানব শরীরে যে রক্ত তৈরি হয়ে থাকে তা প্রতিদিন তৈরি হয় এবং এটা নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে আবার মরেও যায়। রক্ত মানব দেহের চাহিদা অনুযায়ী তৈরি হয়ে থাকে এবং যা বাড়ার বেড়ে থেমে যায়।অনেক সময় দেখা যায় ইনফেকশন এর কারণে রক্তের কণিকা তৈরি টা বন্ধ হয় না।

★মানব দেহের নিয়ম অনুসারে রক্তের যে শ্বেতকণিকা রয়েছে তা হলো ৪ হাজার থেকে ১১ হাজার প্রর্যন্ত।কিন্তু যখন মানুষের ক্যানসার মনে হয়ে উঠে তখন শ্বেতকণিকা বেড়ে চলে এক লক্ষ থেকে ডের লক্ষ। এমন বাড়তে বাড়তে এক পর্যায়ে ২ ৩ লক্ষ মত হয়ে যায়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *